নির্বিচারে কাঁদছে মানবতার বানী

প্রকাশিত: ১১:৪৮ পূর্বাহ্ণ , ১০ ডিসেম্বর ২০২৩, রবিবার , পোষ্ট করা হয়েছে 3 months আগে
প্রতিকী ছবি

আজ ১০ ডিসেম্বর। বিশ্ব মানবাধিকার দিবস। ১৯৪৮ সালের এই দিনে ফ্রান্সের প্যারিসে জাতিসংঘ সদস্য রাষ্ট্রগুলোর সর্বজনীন মানবাধিকার সনদ সর্বসম্মতিক্রমে গৃহীত হয়। সেই থেকে বিশ্বব্যাপী দিবসটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হচ্ছে।

বিশ্বের অন্যান্য দেশের মতো বাংলাদেশেও নানা কর্মসূচীর মধ্য দিয়ে পালিত হচ্ছে আজ রবিবার। মানবাধিকার প্রত্যেক মানুষের জন্মগত মৌলিক অধিকার। দেশের সংবিধানেও এটি সংরক্ষণের কথা বলা আছে। মানুষের প্রতি মানুষের কর্তব্য-দায়িত্ব সর্বোপরি মানবতার প্রতি সম্মান প্রদর্শনই মানবাধিকার ঘোষণার মূল মন্ত্র। অথচ বাংলাদেশে আজ অহরহ মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে। পারিবারিক ও সামাজিক ব্যবস্থা সর্বত্রই নির্বিচারে কাঁদছে মানবতার বানী।

পৃথিবীতে মানুষের জীবনে সবচেয়ে যে জিনিসটি মূল্যবান সেটি হচ্ছে মানবিক মূল্যবোধ। এর সংক্ষিপ্ত সংজ্ঞা হচ্ছে, অপরের কল্যাণ কামনা এবং তা নিশ্চিত করা। এই মানবিক মূল্যবোধ মানুষকে পশু থেকে পৃথক করেছে। নতুবা মানুষ এবং পশুর মধ্যে কোন পার্থক্য নেই। মানুষের মধ্যে যখন ভিটামিনের অভাব হয় মানুষ তখন পুষ্টিহীনতায় ভোগে অসুখ-বিসুখে আক্রান্ত হয়। মানবিক মূল্যবোধেরও তেমন ভিটামিন আছে আর সে ভিটামিন হচ্ছে জ্ঞান। জ্ঞান যখন লোভ পেতে থাকে তখন এই মানবিক মূল্যবোধ অবক্ষয়ের ক্যান্সারে আক্রান্ত হয়। অর্থাৎ মানবিক মূ্ল্যবোধ কমতে হবে।

আজকাল খবরের কাগজ কিংবা টিভি চ্যানেল দেখলেই গা শিউরে উঠে। চারিদিকে কিভাবে যে মানবাধিকার লুণ্ঠিত হচ্ছে তা ভাষায় প্রকাশ করার মত না। তবুও সরকারপক্ষ, বিরোধী দল, মানবাধিকার কমিশন শুধু আশ্বাস দিয়েই যাচ্ছে।

আজ বিশ্ব মানবাধিকার দিবসে সাধারণ মানুষের মৌলিক অধিকার ফিরিয়ে দেয়া হোক। এটাই আমাদের প্রত্যাশা।