সরাইলে মহিলা মার্কেট- টয়লেট বেদখল-! দখলমুক্ত করার দায়িত্ব এখন আমাদের

প্রকাশিত: ৫:১২ অপরাহ্ণ , ৫ জুলাই ২০২০, রবিবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 months আগে

মোঃ তাসলিম উদ্দিন সরাইল প্রতিনিধিঃ সরকারের মহৎ উদ্দেশ্য হতদরিদ্র নারীদের কে পুরুষের পাশাপাশি নারীদের উন্নয়নে সরকার সারাদেশের ন্যায় ব্রাহ্মণবাড়িয়ার সরাইল উপজেলার অরুয়াইল বাজারে মহিলা মার্কেট চালু করে। তবে এ মার্কেটে ঠাঁই হয়নি সরকার মনোনীত হতদরিদ্র নারীদের। ফলে এখানে নারী উদ্যোক্তাদের অর্থনৈতিক কর্মকান্ডে সম্পৃক্ত করতে না পারায় সরকারের উদ্দেশ্য ভেস্তে গেছে।সরেজমিনে দেখা যায়, সম্পূর্ণ পাকা এ ভবনে বড় বড় তিনটি দোকান রয়েছে, ভবনটির ভেতরেই রয়েছে টয়লেট ও পানির ব্যবস্থা। মহিলা দোকানিদের সবধরনের সু-ব্যবস্থা রেখেই এ মার্কেট নির্মিত হয়।

দখলের সত্যতা পাওয়া যায় স্থানীয় ইউনিয়ন পরিষদ তথ্যতে জানায়, এই মহিলা মার্কেটের তিনটি দোকান বাদে অরুয়াইল গ্রামের তানিয়া বেগম ও রেহেনা আক্তার এবং দুবাজাইল গ্রামের আশেক উল্লাহর স্ত্রীর নামে বরাদ্দ দেয়া হয়েছিল। কিন্তু এই নারীরা দোকান বরাদ্দ পেলেও তারা সেখানে ব্যবসার সুযোগ পায়নি।
অরুয়াইল বাজারের ব্যবসায়ীরা সাংবাদিকদের জানান, এই মহিলা মার্কেটের দোকানগুলো নিজেদের মধ্যে ভাগাভাগি করে দখলে নিয়েছেন অরুয়াইল ইউনিয়ন যুবলীগের আহবায়ক বোরহান উদ্দিন, স্থানীয় ইউপি সদস্য ও বিএনপি নেতা রফিক মিয়া ও এই এলাকার ভূমিদস্যু সিন্ডিকেট নেতাদের সহচর আয়েত উল্লাহ।
সরেজমিনে দখলে থাকা আয়েত উল্লাহ বলেন, আমি একটি দোকান দখলে নিয়ে চায়ের দোকান দিয়েছি। আমি গরীব ও ভূমিহীন। এই মার্কেটে আমার স্ত্রীর নামে একটি দোকান বরাদ্দ পেতে আমি আদালতে সরকারের বিপক্ষে মামলা করেছি।
এ দখলের ব্যপারে অরুয়াইল ইউপি যুবলীগের আহবায়ক মোঃ বোরহান উদ্দিন সাংবাদিকদের বলেন, অরুয়াইল বাজার কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি আবু তালেব মিয়া নগদ ৩০ হাজার টাকা নিয়ে এ সরকারি দোকান আমাদের দখলে দিয়েছেন। আমরা এ দোকান নিয়মমাফিক সরকারের কাছ থেকে আনার উদ্যোগ নিয়েছিলাম; কিন্তু আয়েত উল্লাহর দায়ের করা মামলার কারণে এটি সম্ভব হচ্ছে না। বর্তমানে একটি দোকান আমাদের দখলেই আছে।স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা বীর মুক্তিযোদ্ধা কুতুবউদ্দিন ভূঁইয়া বলেন, অরুয়াইল বাজারে এক শতাংশ জমির মূল্য ৪০ লক্ষ টাকার বেশি। মূল্যবান জমিসহ তৈরি বিল্ডিং দোকান এ লোভে তারা আবু তালেবকে টাকা দিয়ে সেই সরকারি মহিলা মার্কেটের দোকান দখলে নেয়।
তবে এসব অভিযোগের জবাবে অরুয়াইল বাজার পরিচালনা কমিটির সাধারণ সম্পাদক ও ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হাজী আবু তালেব মিয়া বলেন, আমি কোনো টাকা-পয়সা নেইনি। তাছাড়া আমি এমন অভাবী মানুষ নই যে সরকারি দোকান দখল দিয়ে টাকা রোজগার করতে হবে। যুবলীগ নেতা বোরহান এখানে দলীয় ক্ষমতার অপব্যবহার করে সরকারি মহিলা মার্কেটের দোকান দখল করেছে।
অরুয়াইল ইউপি চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভূঁইয়া বলেন, এখানে সকল অবৈধ দখলের নেপথ্যে আবু তালেব মিয়া। দীর্ঘদিন এই বাজারের সাধারণ সম্পাদক পদে থাকায় এবং ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সভাপতি হওয়ায় তিনি এখানে অর্থ বাণিজ্যের মাধ্যমে বিভিন্ন সরকারি সম্পত্তি মানুষের দখলে দিয়ে কোটি কোটি টাকা হাতিয়ে নিয়েছেন।এখানকার মহিলা মার্কেট অবৈধ দখল হওয়ার পেছনে আবু তালেব মিয়ার হাত রয়েছে।
সরাইল উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি ) ফারজানা প্রিয়াঙ্কা বলেনঃউর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের নির্দেশ মতে সরকারি সম্পত্তি যারা দখল করেছে। তাদের দখলের বিরুদ্ধে শীঘ্রই উচ্ছেদ অভিযানপরিচালনা করা হবে ।
সরাইল উপজেলা নির্বাহী অফিসার এ এস এম মোসা বলেন, অরুয়াইল বাজারে মহিলা মার্কেট এ অবস্থায় রয়েছে বিষয়টি আমার জানা ছিল না। কেউ আমাকে জানায়নি। আমরা খোঁজখবর নিয়ে মার্কেট উদ্ধার করে দোকান বৈধ বরাদ্দ পাওয়া দুস্থ নারীদের ফিরিয়ে দেওয়ার ব্যবস্থা করবো।
সরাইল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব রফিক উদ্দিন ঠাকুর সাংবাদিকদের বলেন, এসব দখলমুক্ত করার দায়িত্ব এখন আমাদের। আমি অচিরেই ইউএনও এবং এসিল্যান্ড মহোদয় দু’জনের সঙ্গে কথা বলে, তাদের সঙ্গে নিয়ে সেই মহিলা মার্কেটের তিনটি দোকান ও বাজারের দুটি গণশৌচাগার দখলমুক্ত করবো।

মন্তব্য লিখুন

আরও খবর