সমাজে যারা সুদের ব্যবসা করেন, তাদেরকে শান্ত হতে বললেন ইউএনও এ এস এম মোসা

প্রকাশিত: ১০:৫০ অপরাহ্ণ , ১৬ মার্চ ২০২০, সোমবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে

মোঃ তাসলিম উদ্দিন সরাইল প্রতিনিধিঃ সরাইল উপজেলা নিবার্হী অফিসার এ এস এম মোসা বললেন, সমাজে যারা সুদের ব্যবসা করেন, তাদেরকে শান্ত হলে এলাকায় দাঙ্গা ফাসাদ হয় না, সাধারণ গরিব মানুষকে কিছু টাকা ধার না দিয়ে উচ্চ হারে সুদ আদায় নিয়ে সাধারণ মানুষের মাঝে মনোমালিন্য দাঙ্গার মত ঘটনা ঘটে। বতর্মান কালিকচ্ছ পরমানন্দ পুরের ঘটনা উল্লেখ করে ইউএনও বলেন,কয়েক দিন পর পর সরাইলে যেভাবে দাঙ্গা ফাসাদ শুরু হয়, সবসময় আইন-শৃঙ্খলা বাহিনী দিয়ে এই সমস্যার সমাধান করা যাবে না,এ সমস্যার সমাধান করতে হলে জনসচেতনতার প্রয়োজন। উপজেলা পরিষদসহ সকল জনপ্রতিনিধি সাংবাদিক ও সুধীজনদেরকে এর সমস্যা সমাধানে এগিয়ে আসার আহবান জানান।

সরাইল স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স’র কর্মকর্তা ডাঃ নোমান মিয়ার সঞ্চালনায় উপজেলা এডভোকেসী সভা সোমবার (১৬ মার্চ) সাড়ে এগারোটা হাসপাতালের হল রোমে করোনাভাইরাস নিয়ে সচেতনতা সৃষ্টির লক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভার প্রধান অতিথি ছিলেন সরাইল উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মোঃ রফিক উদ্দিন ঠাকুর,এ সময় উপস্থিত ছিলেন, উপজেলা পরিষদ মহিলা-ভাইস চেয়ারম্যান মোছাঃ রোকেয়া বেগম,উপজেলা সমাজ সেবা কর্মকর্তা মোঃ নাইম মৃদা, উপজেলা পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা সুমন মিয়া, উক্ত আলোচনা সভার সভাপতির বক্তব্যে সরাইল উপজেলা নিবার্হী অফিসার এ এস এম মোসা এ কথা গুলো বললেন।সরাইল উপজেলা নিবার্হী অফিসার এ এস এম মোসা সরাইলে করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে বিদেশ ফেরত প্রত্যেক ব্যক্তিকে বাধ্যতামূলক ভাবে চৌদ্দদিন হোম কোয়ারেন্টিনে থাকার নিদের্শ দিয়ে বলেন,পরিষ্কার পরিচ্ছন্ন থাকলে বা কয়েকবার সাধারণ পানিতে হাত ধুলে করোনা ভাইরাস সহজে আক্রােমন করতে পারেনা, তাই যারা নামাজ পড়ি, দিনে পাঁচবার অজু করতে হয়।

ওযু নামায শুধু আমরা জানি সওয়াবের জন্য পড়ি,সাইন্টিফিক দৃষ্টিকোণ থেকে নামাজ শারীরিক ব্যায়াম, স্বাস্থ্যের জন্য ব্যায়াম অনেক উপকার।আমরা যারা মুসলমান অনুধাবন করা উচিত, ইসলামের অনুশাসন মানলে বিভিন্ন রোগ- ভাইরাস থেকে মুক্তি পাওয়া যাবে। এ সময় তিনি আরও বলেন, বহিরাগতরা সময় অসময়ে অযথা ঘোরাফেরা না করে,
হাসপাতালের নিরাপত্তা রাখতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে নজরদারিতে রাখতে বললেন সরাইল উপজেলা নিবার্হী অফিসার এ এস এম মোসা।