রোজা’য় মানুষের সাথে ভালো ব্যবহার করে লকডাউন বাস্তবায়ন করতে হবে এ, এস. পি আনিছুর রহমান

প্রকাশিত: ৯:৩৪ অপরাহ্ণ , ১৯ এপ্রিল ২০২১, সোমবার , পোষ্ট করা হয়েছে 3 weeks আগে

মো. তাসলিম উদ্দিন সরাইল ( ব্রাহ্মণবাড়িয়া)

করোনাভাইরাস সংক্রমণ ঠেকাতে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’ ঘোষণার পর থেকে লকডাউন বাস্তবায়ন করতে মাঠে কঠোর অবস্থান নিয়েছেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সরাইল
থানা পুলিশ।সর্বাত্মক লকডাউনের ৬ষ্ঠ দিন সোমবার (১৯ এপ্রিল ) দিনব্যাপী উপজেলা সদর, কালিকচ্ছ বাজার, উচালিয়াপাড়ার মোড় ও আশপাশের এলাকাসহ উপজেলার বিভিন্ন স্থানে অভিযান চালান ও সাধারন মানুষের মাঝে মাক্স পরিয়ে দেন জনসচেতনতা করতে মাইকিং করা হয়।
মাস্ক বিতরণ ও অভিযান পরিচালনাকালে সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার( সরাইল- সার্কেল) এ.এস.পি মো. আনিছুর রহমান বলেন,গতবুধবার থেকে কঠোর লকডাউন কার্যকর করতে সরকার যে নির্দেশনা দিয়েছেন, তা বাস্তবায়নে কঠোর পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।
পবিত্র রোজা’য় মানুষের সাথে ভালো ব্যবহার করে লকডাউন বাস্তবায়ন করে যাচ্ছে পুলিশ। মাঠ পর্যায়ে পুলিশের জন্য বাস্তবায়ন একটি চ্যালেঞ্জ হিসাবে নিতে হচ্ছে। সাধারণ মানুষ অনেকে অনেক ভাবে কথা বলছেন,তবে পুলিশ তাদেরকে সরকারের নির্দেশনা বুঝাতে চেষ্টা করে যাচ্ছেন।এ সময় এ. এস.পি বলেন,উপজেলার বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ রাস্তায় জনসাধারণের চলাচল নিয়ন্ত্রণ করার জন্য চেকপোস্ট বসিয়েছে সরাইল থানা পুলিশ। এসব চেকপোস্টে গাড়ি থামিয়ে যাত্রীদের পরিচয় এবং রাস্তার বের হওয়ার কারণ জিজ্ঞেস করা হচ্ছে।যেসব পেশার মানুষ জরুরীসেবার সঙ্গে সম্পৃক্ত, তাদের চেকপোস্ট অতিক্রম করার অনুমতি দিয়ে অন্যদের ফিরিয়ে দেওয়া হচ্ছে। তিনি আরো বলেন, উপজেলার বিভিন্ন এলাকার হাট-বাজারের দোকান বিকেল তিনটার মধ্যে বন্ধ, অপ্রয়োজনে বাড়ী থেকে বের না হতে, মাস্ক ছাড়া বাড়ীর বাহির না হতে, দেশে করোনাভাইরাসের ঊর্ধ্বমুখী সংক্রমণের প্রেক্ষাপটে কঠোর বিধিনিষধের ঘোষণা করে সরকার। কিন্তু এই বিধিনিষেধকে বলা হচ্ছে ‘সর্বাত্মক লকডাউন’। করোনার সংক্রমণ রোধে বিধিনিষেধ কার্যকর করার বিকল্প নেই। এসময় সরাইল থানার পুলিশ সদস্যরা অংশগ্রহন করেন।

মন্তব্য লিখুন

আরও খবর