ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় তান্ডবের ঘটনায় প্রশাসন ও পুলিশের ভূমিকা ছিল নিষ্ক্রীয় ………সংসদ সদস্য মোকতাদির চৌধুরী

প্রকাশিত: ১০:৫৮ পূর্বাহ্ণ , ৩০ মার্চ ২০২১, মঙ্গলবার , পোষ্ট করা হয়েছে 3 weeks আগে

মোঃনিয়ামুল আকন্ঞ্জি,স্টাফ রিপোর্টার :

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় হেফাজতের তান্ডবের ঘটনার সময় প্রশাসন ও পুলিশের ভূমিকা নিষ্ক্রীয়ী ছিল বলে অভিযোগ করেন ব্রাহ্মণবাড়িয়া সদর ৩
আসনের সংসদ সদস্য ও জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি র,আ,ম উবায়দুল
মোকতাদির চৌধুরী। তিনি সোমবার দুপুরে হামলায় ক্ষতিগ্রস্থ ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব পরিদর্শন শেষে উপস্থিত সাংবাদিকদের সাথে
মতবিনিময়কালে তিনি এ কথা বলেন। তিনি হেফাজতের তান্ডবের ঘটনায় বিচার বিভাগীয় তদন্তের মাধ্যমে দোষী ব্যক্তিদের শাস্তি দাবি জানান। এ ছাড়া তিনি নিষ্ক্রীয়দের অভিযোগ এনে পুলিশ ও জেলা প্রশাসনের বিরুদ্ধে
ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য সরকারে কাছে দাবি জানান। তিনি আরো বলেন, যেহেতু হরতাল হেফাজত ডেকেছে এসব তান্ডবের দায় দায়িত্ব হেফাজতকে নিতে হবে। মতবিনিময়কালে জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক আল
মামুন সরকার বলেন, দিনভর হেফাজতের তান্ডবে বিক্ষোব্ধকারীরা টার্গেট করে
আমাদের দলীয় নেতাকর্মীদের বাড়িঘর ভাংচুর ও আগুনে পুড়িয়ে দেয়। তারা আমার বাড়ি ও আমার শ্বশুর বাড়িসহ আমার অফিসকে পুড়িয়ে ছাঁই করে দেয়। প্রাণ রক্ষার ভয়ে পরিবারসহ নিরাপদ জায়গায় থাকতে হয়েছে। আমার জীবনের অর্জন করা সব স্মৃতি তারা পুড়ে দিয়েছে। আমরা পুলিশ প্রশাসনকে বার
বার অবহিত করলেও তারা আমাদের সাহায্যে এগিয়ে আসেনি।
————————-#####—————————

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় ক্ষতিগ্রস্থ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেছেন চট্রগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি, ৩ সদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠিত

মোঃনিয়ামুল আকন্ঞ্জি,স্টাফ রিপোর্টার :
রবিবারের ঘটনার পর ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অনেকটা স্বাভাবিক পরিবেশ ফিরে এসেছে। শহরের মানুষের উপস্থিতিও অনেকটা বেড়েছে। ক্ষতিগ্রস্থ স্থানগুলো দেখতে অনেকেই ভীড় করছেন সেখানে। সোমবার সকালে ক্ষতিগ্রস্থ বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান পরিদর্শন করেছেন চট্রগ্রাম রেঞ্জের ডিআইজি মোঃ আনোয়ার হোসেন। এ সময় তিনি ব্রাহ্মণবাড়িয়া রেলস্টেশন, সুর সম্রাট আলাউদ্দিন সঙ্গীতাঙ্গণ, ব্রাহ্মণবাড়িয়া প্রেসক্লাব, পৌরসভাসহ বিভিন্ন ক্ষতিগ্রস্থ
স্থাপনা পরিদর্শন করেন এবং সার্বিক বিষয়ে খোঁজখবর নেন। পরে তিনি সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে জানান, প্রতিটি ঘটনার জন্যই মামলা হবে। তদন্ত স্বাপেক্ষে প্রয়োজনীয় আইনগত ব্যবস্থা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে বলেও তিনি জানান। তিনি আরো জানান, বিষয়টির তদন্তের জন্য চট্রগ্রাম রেঞ্জের অতিরিক্ত
ডিআইজি জাকির হোসেনকে প্রধান করে ৩ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটিগঠন করা হয়েছে। কমিটি আগামী ৭ কর্মদিবসের মধ্যে তাদের প্রতিবেদন দাখিল করবে।

উল্লেখ্য রবিবার হেফাজতে ইসলামের ডাকা হরতাল থেকে বিভিন্ন সরকারী-বেসরকারী, সামাজিক, সাংস্কৃতিক প্রতিষ্ঠান ভাংচুর করে অগ্নিসংযোগ করা হয়। এছাড়া একটি মন্দিরের প্রতিমাও ভাংচুর করা হয়।

মন্তব্য লিখুন

আরও খবর