মেয়ে অপহৃত,আতঙ্কে ঘরছাড়া মা

ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় আ’লীগ নেতার ছেলের কান্ড

প্রকাশিত: ১১:৫৭ অপরাহ্ণ , ৮ ফেব্রুয়ারি ২০২০, শনিবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে
ছবি - কালের বিবর্তন

কালের বিবর্তন রিপোর্ট : ফিল্মী স্টাইলে মেয়েকে উঠিয়ে নেয়ার পর আতঙ্কে বাড়ি ছেড়েছেন মা। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ এক প্রভাবশালী নেতার ছেলের এই অপহরন ঘটনায় মামলা করলে এলাকা ছাড়া করার হুমকী দেয়া হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। আর সে কারনে ঘটনার পর থেকে বাসা তালা দিয়ে অন্যত্রে আত্মগোপন করেছেন তরুনীর পরিবার। তরুনীর এক মামা বলেছেন বিষয়টি নিয়ে তারা আতঙ্কে রয়েছেন।

শহরের পূর্ব মেড্ডা বক্ষব্যাধি হাসপাতাল এলাকার হাজী ইউসুফের মেয়েকে বৃহস্পতিবার বিকেলে বাড়ি থেকে উঠিয়ে নিয়ে যান জেলা আওয়ামীলীগের শীর্ষ প্রভাবশালীর নেতার ছেলে মাহী নামের এক যুবক। এসময় তার সঙ্গে ছিলো আরো কয়েকজন। প্রকাশ্যে অস্ত্র উঁচু করে সিনেমার কায়দায় এ ঘটনা ঘটানো হয় বলে স্থানীয়রা জানান। মুহুর্তেই এলাকা ছাড়িয়ে পড়ে চাঞ্চল্যকর এ ঘটনাটি। টক অব দি টাউন হয়ে উঠে নেতার ছেলের তরুনী অপহরন ঘটনা। শনিবার মেড্ডায় ওই বাড়িতে গিয়ে তালা ঝুলানো দেখা যায়।

তরুনীর বড় মামা হাজী নাজমুল ইসলাম দারু জানান, ঘটনার পরপরই তার বোন পৌরসভার সংরক্ষিত কাউন্সিলর হোসনে আরা বাবুলকে নিয়ে ওই নেতার কাছে যান। তখন বিষয়টি দেখছেন বলে তাদেরকে আশ্বস্থ করেন নেতা। কিন্তু ৩দিন পেরিয়ে গেলেও এর সুরাহা হয়নি। বরং মামলা না করতে হুমকী দেয়া হয়েছে।

তিনি আরো জানান, নেতার ছেলের হেফাজতেই আছে আমার ভাগ্নী। নেতার এক চাচাতো ভাইয়ের মেয়েকে আমাদের এক আত্বীয়ের কাছে বিয়ে দেয়। এই সুবাধে নেতার ছেলে এখানে আসা যাওয়া করতো। তবে তার ভাগ্নীর সাথে ওই ছেলের কোন সম্পর্ক গড়ে উঠেছিলো কিনা সেটি তিনি জানেননা।

ওই তরুনী শহরের আনন্দময়ী উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেনী পর্যন্ত পড়াশুনা করে। তরুনীর পিতা হাজী ইউসুফ মারা যান ১৫/১৬ বছর আগে। ইউসুফ প্রবাসী ছিলেন। তার মৃত্যুর পর একমাত্র কন্যাকে নিয়ে তার বোন মেড্ডার ওই বাড়িতে বসবাস করে আসছেন। বিষয়টি নিয়ে তারা আতঙ্কে আছেন। ৩দিন পেরিয়ে গেলেও ভাগ্নীর সন্ধান মেলেনি। জেলা আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেন।

সদর মডেল থানার এক কর্মকর্তা বলেন, ঘটনা তারা শুনেছেন। তবে মেয়ের পরিবারের কাছ থেকে কোন অভিযোগ পাননি।

উল্লেখ্য, জেলা আওয়ামীলীগের প্রভাবশালী ওই নেতার ছেলে এর আগে আখাউড়ায় অস্ত্রসহ ধরা পড়ে। গত বছরের ২৫ জানুয়ারী গভীর রাতে আখাউড়া পৌর শহরের মসজিদ পাড়া থেকে নেতার ছেলেসহ ৪ জনকে আটক করে পুলিশ। এসময় তাদের বহনকারী প্রাইভেটকার তল্লাশী করে ১টি পিস্তল ও ২ রাউন্ড গুলি উদ্ধার করা হয়। পরে তাকে বাদ দিয়ে পুলিশ ওই ঘটনায় নেতার ছেলের সঙ্গীদের বিরুদ্ধে মামলাটির অভিযোগপত্র দেয়।