পলাশবাড়ীতে ছাত্রলীগ নেতার পরিবারের উপর হামলা আহত ৭

প্রকাশিত: ৩:৫৮ অপরাহ্ণ , ৭ এপ্রিল ২০২০, মঙ্গলবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে
গাইবান্ধা জেলা প্রতিনিধি: গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার ৯ নং হরিনাথপুর ইউনিয়ন ছাত্রলীগের আহবায়ক আব্দুল মতিন শেখের তালুকজামিরা  গ্রামের বসতবাড়ীর পাশে পরিবারের উপর পূর্বশত্রুতার জেড়ে হামলা করেছে হামলাকারীরা । এতে উভয়পক্ষের ৭ জন আহত হয়েছেন। এঘটনায় আহত হয়েছেন আব্দুল মতিন শেখ তার শরীরের বিভিন্ন স্থানে মারডাং,কিল ঘুষি মারা হয়,,তার মা রেনু বেগম (৫২) এর গলায় চাকু মারা হয় , বোন সাবিনা বেগম (৩৫) এর মাথায় আঘাত করে রক্তাক্ত যখম করে, বোন জামাই সাবু মিয়া (৪২) এর শরীরে বিভিন্ন স্থানী লাঠি সোটা রড দ্বারা হত্যার উদ্দেশ্যে আঘাত করে তারা সকলেই বর্তমানে গাইবান্ধা জেলা সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এঘটনায় উভয় পক্ষে মোট ৭ জন আহত হয়েছেন বলে জানা যায়।

জানা যায়,৭ এপ্রিল মঙ্গলবার ভোরে পূর্ব পরিকল্পিতভাবে তালুকজামিড়া গ্রামের মৃত রহিম উদ্দিনের ছেলে ১।শহিদ,শহিদুল ইসলামের ছেলে ২।লাইকুল ইসলাম লিমন,মৃত. রহিম উদ্দিনের ছেলে ৩।শহিদুল ইসলাম,শহিদুল ইসলামের স্ত্রী ৪। লাকী বেগম,শহিদের স্ত্রী ৫। নুরনাহার বেগম,মৃত. রহিম উদ্দিনের স্ত্রী সুফিয়া বেগম সংঘবদ্ধ হয়ে আব্দুল মতিন শেখের পরিবারের উপর আজ ৭ এপ্রিল মঙ্গলবার ভোর ৫:৪৫ ঘটিকার সময় অতর্কিত হামলা করে গুরতর আহত করে। এঘটনার পর স্থানীয়রা তাদের উদ্ধার করে জেলা সদর হাসপাতালে ভর্তি করেন। সেখানে আহতরা চিকিৎসা নিচ্ছেন। স্থানীয়রা জানায় হামলাকারী ব্যক্তিগণ মতিন শেখ এর পরিবারের সদস্যদের উপর অতর্কিত সন্ত্রাসী হামলা করে গুরতর আহত করে। আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠানো হয়।

হামলাকারী গং এর কারো সাথে দেখা না হওয়া তাদের মন্তব্য নেওয়া সম্ভব হয়নি। তবে ছাত্রলীগ নেতা আব্দুল মতিন জানায়, ভোরে যখন আমরা সবাই ঘুমিয়ে তখন আমার বোন জামাইকে মারধর করে হামলাকারীরা এসময় আমার মা এগিয়ে গেলে তাকে গলায় চাকু মেরে ফেলে রাখে এরপর বোন এগিয়ে আসলে তাকে মাথায় স্বজোড়ে আঘাত করে ফেলে রাখে হইচই শুনে ঘুম থেকে জেগে আমি নিজে এগিয়ে আসলে কিছু বুঝে ওঠার আগেই আমাকেও তারা এলোপাতারি কিল ঘুষি মারতে থাকে আমি জ্ঞান হারিয়ে ফেলি পরে স্থানীয়রা আমাদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে আসে। তিনি আরো জানান, হামলাকারীদের সাথে আমার পরিবারের পূর্বশত্রুতা রয়েছে। তবে সেটি হরিনাবাড়ী পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রে আপোষ মিমাংসা হয়। এরপরেও আজ তারা কেন আমার পরিবারের উপর হামলা করলো তা আমার জানা নেই।

হরিনাবাড়ীর পুলিশ তদন্ত কেন্দ্রের ইনচার্জ জানান,ভোরের ঘটনাটি ঘটেছে ঘটনাস্থলে শান্তিপূর্ণ পরিবেশ বজায় রয়েছে আমাদের জানা মতে উভয় পক্ষের ৭ জন নারী পুরুষ আহত রয়েছে। এ পর্যন্ত কেউ কোন লিখিত অভিযোগ নিয়ে আসেনি।

মন্তব্য লিখুন

আরও খবর