• দেশজুড়ে ফিচার
  • নওগাঁর পত্নীতলায় ইউএনও’র বদলীর আদেশ, স্থানীয়দের ক্ষোভ

নওগাঁর পত্নীতলায় ইউএনও’র বদলীর আদেশ, স্থানীয়দের ক্ষোভ

প্রকাশিত: ৭:৫৭ অপরাহ্ণ , ৯ জুন ২০২৪, রবিবার , পোষ্ট করা হয়েছে 1 week আগে
ছবি- কালের বিবর্তন

নওগাঁর পত্নীতলায় উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (ইউএনও) পপি খাতুন এর বদলি আদেশ প্রত্যাহার করে পুনরায় বহাল রাখার দাবিতে মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।

রবিবার (৯জুন) সকাল ১০টার দিকে উপজেলা পরিষদের মূল গেইটের সামনে উপজেলার সর্বস্তরের মানুষের ব্যানারে শিক্ষক, শিক্ষার্থী, ব্যবসায়ী, জনপ্রতিনিধিসহ বিভিন্ন শ্রেনী পেশার প্রায় শতাধিক মানুষ এই মানববন্ধন অংশগ্রহন করেন।

মানববন্ধনে অংশ নেয়া উপজেলার পাটিচরা ইউনিয়নের সদস্য রাবেয়া খাতুন বলেন, ইউএনও পপি খাতুন এই উপজেলায় যোগদানের পর থেকে খুব অল্প সময়ে উপজেলার চিত্র পাল্টাতে শুরু করেছে।

তিনি সকলের কথা শোনেন, রিকশা চালক অটোচালক দিনমজুর সকলেই তার সাথে দেখা করতে পারেন কথা বলতে পারেন। মাত্র ৩ মাস হলো তার যোগদান তার বিরুদ্ধে কোন অভিযোগ শোনা যায় নি তাহলে কেন বদলী হচ্ছে।

কলেজ শিক্ষার্থী আয়েশা সিদ্দীকা বলেন, এই ইউএনও একজন জনবান্ধব ইউএনও, আমরা পত্নীতলাবাসী এর আগে এমন অফিসার পাইনি। উনার কাছে সকল শ্রেণীর মানুষ যেতে পারে দুটো কথা বলতে পারে। আমরা এমন ইউএনও তো চাই। ওনি আসার পর উপজেলার অনেক দূর্নীতি বন্ধ করে দিয়েছে। আমরা এখন নিশ্চিন্তে সেবা নিতে পারি।

হঠাৎ করেই তার বদলির আদেশে ফুঁসে ওঠেছে উপজেলা বাসী। পত্নীতলা উপজেলাকে স্মার্ট উপজেলা হিসেবে জাতির সামনে তুলে ধরতে এবং উপজেলাবাসীর জীবন মান-উন্নয়নে ইউএনও পপি খাতুন এর বদলি আদেশ প্রত্যাহার করে এ উপজেলায় পুনরায় বহাল রাখার দাবি জানানো হয় এই মানববন্ধনে।

স্থানীয় বাসিন্দা রবিউল ইসলাম জানান, খুব অল্প সময়ে মানবিক কার্যাবলী, কর্মদক্ষতা সম্পন্ন জনবান্ধব এই কর্মকর্তা উপজেলার সর্ব সাধারণের ভালবাসা ও আস্থা অর্জন করেন। ইউএনও পপি খাতুন মাদক নিয়ন্ত্রন, বাল্য বিবাহ প্রতিরোধ, কিশোর অপরাধ দমনসহ বিভিন্ন অনিয়মের বিরুদ্ধে সোচ্ছার থেকে নিয়মিত ভ্রাম্যমান আদালতের অভিযান পরিচালনা করে আসছেন।

আমরা এই কর্মকর্তার বদলী আদেশ বাতিল করে তাকে পুনর্বহাল করার জন্য প্রধানমন্ত্রীসহ সংশ্লিষ্ট সকলের নিকট জোর দাবি জানাচ্ছি।

এ বিষয়ে ইউএনও পপি খাতুন বলেন, সরকারি চাকুরী আসলে আমাদের বদলি প্রক্রিয়াটি রেগুলার প্রক্রিয়া। আমার মনে হয় আমার সিনিয়র স্যারেরা প্রশাসনিক কারণে সুচিন্তা করেই এটা করতে পারেন।

একই সাথে জনগণ যে দাবিটি আমাকে রাখারর জন্য বা বদলি বাতিল এর জন্য জনসমর্থন বা মানববন্ধন করেছেন সেটা মানুষের ভালোবাসার বহিঃপ্রকাশ, তবে আমার সিনিয়র স্যারদের প্রতি আমার শ্রদ্ধা থাকবে। বাকিটা তাদের বিবেচনা, আমার মনে হয় আমি যেখানেই যাবো আমার কার্যাদেশ যেটা সেটা নিয়েই কাজ করবো।

উল্লেখ্য, চলতি বছরের ২৯ ফ্রেবুয়ারী পত্নীতলায় যোগদান করেন আবার গত ৬জুন২৪ তারিখে সরকারি এক আদেশে তাকে জয়পুরহাটের কালাই উপজেলায় বদলি আদেশ দেওয়া হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন

আরও খবর