জর্ডানে খাদ্য সঙ্কটে থাকা বাংলাদেশীদের মাঝে খাদ্য বিতরণ শুরু করেছে বাংলাদেশ দূতাবাস

প্রকাশিত: ১:২৭ পূর্বাহ্ণ , ১০ এপ্রিল ২০২০, শুক্রবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে
কোহিনূর আক্তার, আম্মান,জর্ডান থেকেঃ মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সরকার প্রবাসী বাংলাদেশীদের সহায়তাদানে সচেষ্ট রয়েছে। মাননীয় পররাষ্ট্রমন্ত্রী ও মাননীয় প্রবাসী কল্যান মন্ত্রীর যৌথ নির্দেশনায় দূতাবাস গুলো বাংলাদেশীদের সাহায্য করেছে। এ প্রেক্ষিতে জর্ডানে বাংলাদেশ দূতাবাস জর্ডানে চলমান কারফিউের কারনে যে সকল বাংলাদেশী খাদ্য সঙ্কটে আছেন তাদের সাহায্যার্থে খাদ্য বিতরন কর্মসূচী চালু করেছে।
৯ মার্চ বৃহস্পতিবার বাংলাদেশ দূতাবাস রাজধানী আম্মানের মাহাত্তা ও জাবাল হোসেন এলাকায় রাষ্ট্রদূত এবং দূতাবাসের প্রথম সচিব( শ্রম) মনিরুজ্জামান ও দূতালয় প্রধান মোঃবশির, বঙ্গবন্ধু ফাউন্ডেশন জর্ডান শাখার সাধারণ সম্পাদক এএস শ্যামল,প্রবাসী নাট্য-শিল্পী একাডেমির সভাপতি আন্না হাওলাদার,ফজিলাতুন্নেছা ফাউন্ডেশনের সাবেক চেয়ারম্যান সফিকুল ইসলাম স্বপনসহ বিভিন্ন প্রবাসী বাংলাদেশী কমিউনিটি নেতাদের সাথে নিয়ে  খাদ্য বিতরণ করেন। খাদ্য সঙ্কটে থাকা ব্যক্তিদের একটি তালিকা ইতোমধ্যে দূতাবাস প্রস্তুত করেছে। এছাড়াও দূতাবাসের ফেইসবুক পেইজ ও হট-লাইনের মাধ্যমে প্রতিনিয়ত যারা যোগাযোগ করছেন তাদের নাম এই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত করা হচ্ছে। রাষ্ট্রদূত এই হট-লাইনের মাধ্যমে কেউ খাদ্য সঙ্কটে থাকলে দূতাবাসকে অবহিত করার আহ্বান জানিয়েছেন। এক বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে জানানো হয়েছে যে, তালিকায় কেউ বাদ পড়লেও প্রকৃত খাদ্য সঙ্কটে থাকা কোন ব্যক্তি দূতাবাসকে অবহিত করলে দূতাবাস প্রত্যোককেই এই সহযোগিতা প্রদান করবে।
উল্লেখ্য, জর্ডানে প্রায় দেড় লক্ষ বাংলাদেশী রয়েছেন। তাদের প্রায় সকলেই এখানকার পোশাকশীল্প কারখানা অথবা গৃহশ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। জর্ডান সরকার ঘোষনা দিয়েছে এসকল শ্রমিকদের নির্দিষ্ট সময়ে তাদের বেতন ভাতা পরিশোধের জন্য। এই বিষয়ে দূতাবাস সার্বক্ষণিক জর্ডানের পোশাক কারখানার মালিক ও গৃহ শ্রমিক নিয়োগদাতা এজেন্সির সাথে যোগাযোগ রক্ষা করছে।
জর্ডানে প্রায় ১০-১৫ হাজার বাংলাদেশী আছেন যারা ফ্রি ভিসায় নিজস্ব ব্যবসা পরিচালনা করেন অথবা দৈনিক ভিত্তিতে শ্রমিক হিসেবে কাজ করেন। তাদের মধ্যে বৈধ কাগজপত্রবিহীন প্রায় আড়াই থেকে তিন হাজার শ্রমিকের খাদ্য সহায়তার প্রয়োজন হতে পারে বলে ধারনা করা হচ্ছে।
বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূতের ঐকান্তিক চেষ্টার ফলে জর্ডানে খাদ্য সহায়তার জন্য বাংলাদেশ সরকার অর্থ বরাদ্দ করলে দূতাবাস দ্রুততম সময়ে এই খাদ্য বিতরণ কার্যক্রম শুরু করে। প্রকৃত খাদ্যসঙ্কটে থাকা কেউ যেন বাদ না পরে সেই লক্ষ্যে দূতাবাস স্থানীয় বাংলাদেশী সামাজিক, সাংস্কৃতিক ও রাজনৈতিক সংগঠনের প্রতিনিধিদের সম্পৃক্ত করে এই কার্যক্রম পরিচালনা করছে।