করোনা আতঙ্কের মাঝেঃ সরাইলে চলছে সরকারি জায়গা দখল করে ভরাট!

প্রকাশিত: ১০:৩৬ অপরাহ্ণ , ৩ এপ্রিল ২০২০, শুক্রবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে
সরাইল-অরুয়াইল আঞ্চলিক সড়কের পাশে সরকারি খাল ও পানি নিষ্কাশনের নালা'য় বালু ফেলে উপজেলার কালিকচ্ছ ইউনিয়নের বিশুতারা এলাকায় এই অবৈধ দখল ও ভরাটের রামরাজত্ব চলছে।

নিজস্ব প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ করোনা ভাইরাস আতঙ্কে। অন্যদিকে সরাইলের কয়েক জন প্রভাবশালী দখলদাররা সরকারি বিশাল জায়গা দখল করে সেখানে ড্রেজার মেশিনে বালু ফেলে ভরাট করছে।

এই দেখে স্হানীয় এক ব্যক্তি বলে, “নিজের জান গেলে ও অখনের বাইলে জাগা যা বোইরা দখল করা যায়।” আজ শুক্রবার (৩ এপ্রিল) দুপুরে সরেজমিন দেখা যায়, সরাইল-অরুয়াইল আঞ্চলিক সড়কের পাশে সরকারি খাল ও পানি নিষ্কাশনের নালা’য় বালু ফেলে উপজেলার কালিকচ্ছ ইউনিয়নের বিশুতারা এলাকায় এই অবৈধ দখল ও ভরাটের রামরাজত্ব চলছে।

এদিকে করোনা প্রতিরোধেও জনসচেতনতায় প্রশাসন মাঠে ব্যস্ত রয়েছে। তারা এ সুযোগে সরকারি এ বিশাল জায়গা ভরাটের পর সেখানে প্লট বানিয়ে বিক্রি করবে দখলদাররা, এমনটি জানিয়েছেন এলাকার লোকজন।স্থানীয় লোকজন জানান, করোনা প্রতিরোধে উপজেলা প্রশাসনের কর্তাব্যক্তিরা যখন ব্যস্ত সময় পার করছেন এবং করোনায় সরকারি দফতর বন্ধের সুযোগে প্রভাবশালী দখলদাররা এখানে অবৈধ দখলের পর সরকারি জায়গা বালু ফেলে ভরাট করছে।

এদিকে দখলদারদের মধ্যে দুইজন নাম প্রকাশ না করার শর্তে জানান, সেখানে খালের পাড়ে আমাদের মালিকানা কৃষি জমি রয়েছে। সামনের সরকারি জায়গা ভরাট ছাড়া সেখানে ঘরবাড়ি নির্মাণ সম্ভব নয়। তাই আমরা কতিপয় জনপ্রতিনিধি ও রাজনৈতিক নেতাদের সঙ্গে চুক্তি করেই এখানে ভরাটের ব্যবস্থা করেছি। তাঁরা (নেতারা) বলে দিয়েছেন “করোনায় সরকারি বন্ধের মধ্যে এখানে ভরাটের কাজ শেষ করতে। প্রশাসন ও সাংবাদিক তাঁরা সামলাবেন। তাই আমরা ড্রেজার মেশিনে রাত-দিন ভরাটের উদ্যোগ নিয়েছি।জানতে চাইলে কালিকচ্ছ ইউনিয়ন ভূমি অফিসার আমিনুল ইসলাম জানান, বিষয়টি সরেজমিনে দেখে অবশ্যই ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে জানানো হবে। প্রয়োজনে কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে মামলা করা হবে।

এ বিষয়ে সরাইল উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভৃমি ) এসিল্যান্ড ফারজানা প্রিয়াঙ্কা এ প্রতিনিধিকে বলেন, সরকারি জায়গা দখল করে ভরাট করার সুযোগ নেই। সরেজমিনে দেখে আইনী ব্যবস্থা নেওয়া হবে। কাউকে ছাড় দেওয়া হবে না।