• অপরাধ ও দুর্নীতি আশুগঞ্জ
  • আশুগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে উত্তর সরবরাহের ঘটনায় ৫ শিক্ষকের জেল, হলসুপার ও কেন্দ্র সচিবকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি

আশুগঞ্জে এসএসসি পরীক্ষা কেন্দ্রে উত্তর সরবরাহের ঘটনায় ৫ শিক্ষকের জেল, হলসুপার ও কেন্দ্র সচিবকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি

প্রকাশিত: ৭:০৭ অপরাহ্ণ , ৩ ফেব্রুয়ারি ২০২০, সোমবার , পোষ্ট করা হয়েছে 4 years আগে
প্রতিকী ছবি

জহির রায়হান : ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জে চলমান এসএসসি ও সমমান দাখিল পরীক্ষায় দাখিল পরীক্ষার্থীদের এমসিকিউ এর উত্তর সরবরাহ করার দায়ে ৫ শিক্ষকের প্রত্যেককে দুই বছরের কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা করে জরিমানা করেছে ভ্রাম্যমান আদালত।

আজ সোমবার (৩ জানুয়ারি) দুপুরে ব্রাহ্মণবাড়িয়ার আশুগঞ্জ ফার্টিলাইজার স্কুল এন্ড কলেজের মাদ্রাসা কেন্দ্রে এই ঘটনাটি ঘটে।

আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মোঃ নাজিমুল হায়দার এই ভ্রাম্যমান আদালত পরিচালনা করেন।

সাজাপ্রাপ্তরা হলেন, উপজেলার চরচারতলা ইসলামিয়া আলিম মাদ্রাসার সহকারী সুপার মোঃ মাজহারুল ইসলাম (৪২) একই মাদ্রাসার সহকারী শিক্ষক মোঃ শফিকুল ইসলাম (৩৫), খোলাপাড়া ওমেদ আলী শাহ দাখিল মাদ্রসার সহকারী সুপার মোঃ মহিউদ্দিন (৩৮), তালশহর করিমিয়া ফাজিল মাদ্রাসার প্রভাষক কবির হোসেন (৪০) ও সরাইল উপজেলার পানিশ^র মাদেনিয়া গাউছিয়া দাখিল মাদ্রাসার সহকারী সুপার আব্বাস আলী (৫০)।

মোবাইল কোর্ট সূত্রে জানা যায়, চলমান দাখিল পরীক্ষার সোমবার সকালে আশুগঞ্জ ফার্টিলাইজার স্কুল এন্ড কলেজের মাদ্রাসা কেন্দ্রে ছিল কোরআন মাজিদ ও তাজিভিদ পরীক্ষা। এসময় পরীক্ষা শুরু হওয়ার কিছুক্ষন পরেই কেন্দ্র সচিবের পাশের রুমে দন্ডপ্রাপ্ত ৫ জন মিলে এই পরীক্ষার এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তর লিখছিলেন। এসময় উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ নাজিমুল হায়দার ও উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেন কেন্দ্র পরিদর্শনে যায়। পরে কেন্দ্র সচিবের পাশের রুমে যেতেই ৫ জন বহিরাগত মিলে এমসিকিউ প্রশ্নের উত্তর লিখাবস্থায় দেখে ফেলেন। পরে তাদের আটক করে ভ্রাম্যমান আদালতের আওতায় নেয়া হলে তারা প্রত্যেকে তাদের অপরাধ স্বীকার করে নেয়ায় ৫ জনকেই দুই বছরের কারাদন্ড ও ১০ হাজার টাকা করে অর্থদন্ড দেয়া হয়।

আশুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী অফিসার ও নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. নাজিমুল হায়দার জানান, পাবলিক পরীক্ষাসমূহ (অপরাধ) আইনের ১৯৮০ এর ধারা ৯ (ক) মোতাবেক প্রত্যেককে দুই বছরের কারাদন্ড এবং ১০ হাজার টাকা অর্থদন্ড প্রদান করা হয়েছে। পরীক্ষা কেন্দ্রে এই অভিযান অব্যাহত থাকবে।

এদিকে, এ ঘটনায় হলসুপার ও কেন্দ্র সচিবকে দায়িত্ব থেকে অব্যাহতি দেয়া হয়েছে।

মন্তব্য লিখুন